Archive for February 23, 2011

ট্রাভেল লগ ১: কুয়ালা লামপুর LCCT টার্মিনাল

Travel Log : 16th January, 2011

কুয়ালা লামপুর LCCT টার্মিনালের ইমিগ্রেশন পার হয়ে আসতে আসতেই খিদে লেগে গেছে। ঘড়িতে রাত পৌনে এগারো। লম্বা করিডরে খাবার দোকানের অভাব দেখছি না। স্টার বাকস, ম্যাকডোনাল্ডস, দ্যা কফি বিন, কেএফসি, এশিয়ান কিচেন সহ আরো ডজন খানেক যেগুলোর নামও কখনো শুনিনি। ফারিয়া ম্যাকডোনাল্ডসের বার্গার আর আইসক্রিম খাবে তাই ওখানেই ঢুকলাম। একমাত্র টুইস্টার ফ্রাই আর আগ্রহ নিয়ে ফারিয়ার খাওয়া দেখা ছাড়া আর কিছুই মজার মনে হলনা। উৎকৃষ্ট মানের অখাদ্য। মালয়েশিয়াতে খাবার মোটেও সস্তা নয় যেমনটা মানুষ গল্প করে। ফারিয়া আরেকটা দোকান থেকে যখন ডোনাট আর হাফ লিটার পানি কিনল। বিল দিতে গিয়ে খেয়াল করলাম দাম অনেক বেশি। একটা জিনিসই এখানে সস্তা, আইসক্রিম। বাংলাদেশে ৮০-১০০ টাকার নিচে আইসক্রিম স্কুপ পাওয়া যায়না। এখানে ১ রিঙ্গিতেই স্কুপ। স্টার বাকসের দোকান দেখে ঢুকে পরলাম। অনেক নাম শুনেছি কখনো খাওয়া হয়নি। দোকানিকে বললাম

:I have never tried star bucks coffee before. Can you suggest me the best one?

:It’s star bucks. every thing is best

:Suggest me the best of the best

কিছুক্ষণ চিন্তা করে বলল:Then you can try the Brew

কফির স্বাদ তেমন আহামরি কিছুনা। কিন্তু গন্ধটা অসাধারণ। মন ভালো করিয়ে দেবার মত।

রাত ১:৩০ মিনিট। টার্মিনালের বাইরে বসে আছি দুঘণ্টা ধরে। আরো সাড়ে তিন ঘণ্টা পর পরের ফ্লাইটের বোর্ডিং। বসে থাকা ছাড়া আর কিছুই করার নেই। এয়ারপোর্ট থেকে শহরে যেতে দেড় ঘণ্টা লাগবে, ফেরত আসতেও তাই। আধ ঘণ্টার জন্য ঘুমন্ত শহরে যাবার কোনো মানে হয় না। পুরো শহরের সাথে এয়ারপোর্টও ঘুমিয়ে পরেছে। যে যেখানে পেরেছে গুটিসুটি মেরে ঘুমিয়ে আছে। আমার পাশে এক ইন্ডিয়ান তার ব্যাগটা বুকের সাথে শক্ত করে ধরে ঝিমুচ্ছে। ইউরোপিয়ানরা এসবের ধার ধরে না। পায়ের কাছে এক মা চাদর বিছিয়ে কোলের বাচ্চাটাকে জড়িয়ে ধরে ঘুমিয়ে আছে। লাগেজ ট্রলিতেই আছে। প্লেনে আসার সময় এক লোকের সাথে পরিচয় হয়েছে। ভদ্রলোক অস্ট্রেলিয়া যাচ্ছেন। মালয়েশিয়া হয়ে ট্রানজিট নিচ্ছেন। গল্প করতে করতে বললেন তার সাথে এক বাঙালির পরিচয় হয়েছে। সে বলেছে আপনি নিশ্চিন্তে ঘুমান। আপনার মালামাল কেউ নিবে না। নিলে বাঙালিরাই নিবে। আর বাঙালিরা নিলে আমি আছি। সে নাকি ওখানকার ক্লিনারদের সুপারভাইজার।

ঘুম পাচ্ছে। সারাদিন যথেষ্ট ধকল গেছে। সব কাজ শেষ মুহূর্তে করার অভ্যাসটা এখনো বদলাতে পারিনি। সারাদিন ধরে তার মাশুল দিয়েছি। আমার ফ্লাইট সাড়ে চারটায়। আমি ডলার এন্ডার্স করাতে গেছি এগারোটায়। লম্বা একটা লাইন আর চওড়া দুটো ফর্ম ফিলাপ করে কাজ শেষ করতে করতে সাড়ে বারো। বাসায় ফিরে রেডি হয়ে বের হতে হতে দুইটা আর জ্যাম ঠেলে এয়ারপোর্ট পৌছাতে পৌছাতে সোয়া তিনটা। বোর্ডিং কাউন্টার ক্লোজ হবে চার টায়। আমার হাতে যথেষ্ট সময় আছে। ধারণা ভুল, বোর্ডিং কার্ড নিতে গিয়ে দেখি আমার টিকেট cancel করা হয়েছে। ফ্লাইটের বুকিং দিয়েছিলাম ডনির ক্রেডিট কার্ডে। পরে লাগেজ বাড়াতে গেছি হুমায়রার কার্ড দিয়ে। এয়ারএশিয়ার মনে হয়েছে fraud transaction তারা পুরো transaction ই cancel করে দিয়েছে। তারা আবার খুবই কাবিল, এটুকু করেই থেমে থাকেনি। খুঁজে বের করেছে আমার নামে আর কোন বুকিং আছে। কুয়ালালামপুর থেকে ফুকেটের ফ্লাইটও cancel করে দিয়েছে। কাউন্টারের লোকটা নির্লিপ্ত ভঙ্গিতে এটুকু জানিয়ে পরের যাত্রীর দিকে মনোযোগ দিলেন।

ঠেলেঠুলে আবার সামনে গিয়ে জিঞ্জেস করলাম

:Can we fly today or not?

:অবশ্যই। আপনি ৪ টার মধ্যে পুরো টাকা পে করলে অবশ্যই পারবেন।

আমি আসার সময় ভিসা কার্ড বাসায় রেখে এসেছি। অযথা দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়ার কোনো মানে হয়না। এখন বাজে ৩:২০। এই জ্যামের মধ্যে বাসায় গিয়ে কোনো ভাবেই ৪ টার মধ্যে ফেরত আসা সম্ভব না। আমি হিসাব শুরু করলাম ফ্লাই না করলে কি কি অসুবিধা হতে পারে। যেহেতু ফ্লাইট বাতিল তাই ফ্লাইটের টাকা ফেরত পাওয়া যাবে। কুয়ালালামপুরে হোটেলের বুকিং cancel করা যাবে। ফুকেটে হোটেলের পেমেন্ট হয়ে গেছে। লস বলতে এটুকুই। সমস্যা অন্য জায়গায়। ফারিয়া গত এক বছর ধরে ফুকেট যাবার আশায় বসে আছে। গত এক মাস ধরে প্ল্যানিং করেছে ফুকেটের কোথায় কি করবে এই নিয়ে। না যেতে পারলে বেচারি খুবই মন খারাপ করবে। এবং পুরো ব্যাপারটা সামাল দেবার কাজটা আমাকে করতে হবে। আর এই কাজটায় আমি একেবারেই আনাড়ি।

সমস্যা যেখানে আকাশ থেকে পড়ে, সমাধানও মাটি ফুরে বের হয়। আমার শশুর চাকরি করেন কুয়েত এয়ারওয়েজে। শীতের দিন বলে ফ্লাইটের টাইম পিছিয়ে এসেছে। ওই সময় অফিসের অনেকেই ডিউটিতে ছিলেন। ফারিয়া ওর বাবাকে ফোন দিল। তারা খবরটা জানার পর কি করে যেন মিনিট কয়েকের মধ্যেই পুরো টাকাটা যোগার করে ফেললেন। বোর্ডিং কার্ড নেয়ার সময় জিজ্ঞেস করলাম

:আপনাদের কি মাঝে মাঝেই এরকম transaction cancel হয়?

ভদ্রলোক আবারও নির্লিপ্ত ভঙ্গিতে বললেন: আজকেও ৫ জনের হয়েছে।

যারা ভবিষ্যতে এয়ারএশিয়াতে ফ্লাই করবেন, এই ব্যাপারটা মনে রাখার চেষ্টা করবেন। সবচে ভালো হয় টিকেটের পুরো টাকাটা সাথে করে নিয়ে যাওয়া।



Kuala Lumpur (কুয়ালা লামপুর), Travel log (ট্রাভেল লগ) , , , , , , No comments