Archive for April 6, 2012

আকাশের মুখ গোমরা

ইংরেজিতে একটা কথা আছে। A perfect holiday. বাংলা করলে কি দাঁড়ায়? চমৎকার ছুটির দিন? হবে হয়তো। আমি ভাষাবিদ না। ইংরেজি জ্ঞানও সোনামণিদের কাতারে। দুবার IELTS দিয়েছি। দুবারই Reading-এ ৬ পেয়েছি। উন্নতি হয়নি। যাই হোক যা বলছিলাম। A perfect holiday. আজ দিনটা মনে হচ্ছে ঠিক তাই। সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি আকাশের মুখ গোমরা। এক নজর দেখেই বুঝতে পারছি, একটু পরেই অঝোরে কান্না শুরু হবে। কারো পৌষ মাস কারো সর্বনাশ। আকাশের মন খারাপ দেখে, আমার আমার মন ভালো। খুব সকাল সকাল মন ভালো হওয়া ভাগ্যের ব্যাপার।

কঠিন বৃষ্টি শুরু হওয়ার আগে আকাশ কাল হয়। মাঝে মাঝে তীব্র বাতাস বয়। কেন যেন এই সময়টা খুব ভালো লাগে। আমার একার না অনেকেরই নাকি লাগে। ছোট বেলায় এই সময়টা কাটতো দৌড়ের উপর। আমার মায়ের সব কিছু রোদে দেয়ার বাতিক আছে। ২/৩ দিন পর পর বালিশ, তোষক, সোফার ফোম রোদে দেন। আকাশ কাল হওয়া মাত্র দৌড়ে ছাঁদে যাওয়া, সব কিছু নিয়ে বাসায় আসা। বাকিটা সময় ছাদের দেওয়াল ঘেঁষে বৃষ্টির অপেক্ষা। বৃষ্টি আসা মাত্র দৌড়ে চিলে কোঠায় ঢুকে যাওয়া। অথবা খুব সাহস করে বৃষ্টিতে ভিজে যাওয়া। ঠাণ্ডা লাগলে কপালে পিটুনি আছে।

বৃষ্টি শুরু হয়েছে। জোরেই হচ্ছে। দরজা জানালা সব খুলে রেখেছি। ঘর ভালই ঠাণ্ডা হচ্ছে। অনেক দিন পর এসি ছারাই বাসা ভালো ঠাণ্ডা হচ্ছে। খিদে পেয়েছে। নাস্তা বানানোর ঝামেলা নেই। ফ্রিজে পাস্তা আছে। বের করে খেয়ে ফেললাম। গরম খাবার খেতে ভালো লাগে না। চুলায় বা ওভেন-এ গরম করি না, ঠাণ্ডাই খাই। শুধু গরু বা খাসির মাংস ঠাণ্ডা খাওয়া যায়না। বাধ্য হয়ে গরম করতে হয়। নাস্তার পর আয়েশ করে চা খাচ্ছি। আরাবিয়ান নিডোর দুধে বানানো চা। পরিমাণ মত লিকার জাল দিয়ে, আরাবিয়ান নিডো মিশিয়ে বানান চায়ের চেয়ে ভালো চা বানানো সম্ভব না। অন্তত আমি এখনো খাইনি।

ছুটির দিনে আয়েশ একেক জনের কাছে একেক রকম। কারো কাছে সবাই মিলে আড্ডা মারা, কারো কাছে ঘুরতে যাওয়া, কারো কাছে বই পড়া কিমবা মুভি দেখা। আমার কাছে চা/কফি খেতে খেতে কম্পিউটারের সামনে বসে থাকা। এমন না যে কোন কাজ করি। বিশেষ কিছুই করি না। শুধুই বসে থাকি। আজকে ঠিক তাই করছি। মাসুম ভাই ঠিকই বলেন। পোলাপান বাসায় গিয়া টিভি দেখে, গান শুনে অথবা হা করে বসে থাকে। আমিও বসেই থাকি। তবে খেয়াল করেছি, মুখ হা করে থাকি না, বন্ধই থাকে।

গানের ক্ষেত্রে আমি পুরোপুরি লুপে পড়ে যাই। কোনটা ভালো লাগলে রিপিট দিয়া শূনতে থাকি। আপাতত জাতীয় সংগীতের মধ্যে আছি। ক্ষ-নামের একটা ব্যান্ড গিটারে জাতীয় সংগীতের চমৎকার একটা কম্পোজিশন বানিয়েছে। শুনতে ভালই লাগছে। যদিও জানিনা জাতীয় সংগীত এভাবে পরিবর্তন বেআইনি কিনা। কেউ চাইলে ইউ-টিউব থেকে শুনতে পারেন। Khiyo – Amar Shonar Bangla | ক্ষ – আমার সোনার বাংলা



বৃষ্টি 2 comments